মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C

চাঁদপুর সরকারী কলেজ

চাঁদপুর সরকারি কলেজ দেশের অন্যতম উচ্চশিক্ষা প্রতিষ্ঠান। এটি চাঁদপুরবাসীর গর্বের প্রতীক। অবিভক্ত বাংলার প্রধানমন্ত্রী হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী ১৯৪৬ সালের ১৫ জুন কলেজের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ এই কলেজ প্রতিষ্ঠায় অণুঘটক হিসেবে কাজ করে। যুদ্ধে অক্ষশক্তির আক্রমনে মিত্রশক্তি যখন বিধ্বস্ত হচ্ছিল তখন ব্রিটিশ সরকার নিরাপত্তার জন্য কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজের উচ্চ মাধ্যমিক শাখা চাঁদপুর হাসান আলী সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ে স্থানান্তর করে। ১৯৪৬ সালে যুদ্ধশেষে যখন কলেজের উচ্চ মাধ্যমিক শাখা পুনরায় কুমিল্লায় স্থানান্তরিত হয় তখন চাঁদপুরের বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ, শিক্ষানুরাগী  চাঁ‍দপুরে একটি স্থায়ী কলেজ স্থাপনের সর্বসম্মত সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে। আজিজ আহমেদ ময়দানের পরিত্যক্ত সেনা ছাউনীতে কলেজের কার্যক্রম শুরু হয়। বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ পরেশ চন্দ্র গাঙ্গুলি ছিলেন কলেজের প্রথম অধ্যক্ষ। যাত্রা শুরুর পর থেকেই বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ ও শিক্ষানুরাগী দানশীলদের দান করা অর্থ ও জমিতে কলেজের নিজস্ব ভবন তৈরী হয়। কলেজের মূল ভবনটির স্থাপত্যশৈলী অত্যন্ত দৃষ্টিনন্দন। প্রাথমিভাবে মানবিক ও বিজ্ঞান বিভাগ দিয়ে কলেজটি যাত্রাশুরু করে পরবর্তীতে ১৯৪৮ সালে বানিজ্য বিভাগ চালু হয়। ১৯৫৮ সালে কলেজটি ডিগ্রি পর্যায়ে উন্নীত হয়। ১৯৮০ সালে কলেজটি জাতীয়করণ করা হয়। ১৯৯১-৯২ শিক্ষা বর্ষ থেকে অনার্স এবং ১৯৯৩-৯৪ শিক্ষা বর্ষ থেকে মাস্টার্স কোর্স চালু হয়। বর্তমানে মোট ১৭টি বিষয়ে অনার্স ও ১৩টি বিষয়ে মাস্টার্স কোর্স চালু আছে। কলেজের নিজস্ব ১৬.৫৬ একর জমিতে ৩টি একাডেমিক ভবন, ০২টি ছাত্রাবাস, ০১টি ছাত্রীনিবাস, কেন্দ্রীয় মসজিদ, ক্যাফেটেরিয়া, ছাত্র ইউনিয়ন ভবন নিয়ে চাঁদপুর শহরের প্রাণকেন্দ্রে এর সুপরিসর ক্যাম্পাস। এই কলেজ ক্যাম্পাসেই আছে জেলার এ‌কমাত্র বাস্কেটবল কোর্ট। বর্তমানে এই কলেজের ছাত্র-ছাত্রীর সংখ্যা সাত হাজার পাঁচশত।